শান্তির ধর্ম প্রকৃত ইসলামের উপর একটি অন্যন্য সাধারন ওয়েবসাইট


আমাদের শত্রু কারা?


আমাদের কোন শত্রু  নেই। কোন আদম সন্তানকেই (সে কাফের হোক, মুশরিক হোক, অমুসলমান হোক, নাস্তিক হোক, জংগী হোক, চোর হোক, ডাকাত হোক ইত্যাদি) আমরা আমাদের শত্রু  মনে করি না। এই পৃথিবীর প্রায় অধিকাংশ মানুষই ভুল এবং ক্ষতির মধ্যে আছে।

 [103 সূরা আছর] [1] কসম সময়ের, [2] নিশ্চয় মানুষ জাতি মারাত্বক ক্ষতির মধ্যে; [3] কিন্তু তারা নয়, যারা বিশ্বাস স্থাপন করে ও সৎকর্ম করে এবং পরস্পরকে তাকীদ করে সত্যের এবং তাকীদ করে সবরের।

যেহেতু অধিকাংশ মানুষই ভুল এবং ক্ষতির মধ্যে আছে, ক্ষমা এবং ভালবাসাই পারে (যা সব নবী-রাসুলদের শিক্ষা ছিল) পৃথিবীতে প্রকৃত শান্তি আনতে। ভেবে দেখুন এক সময় হজরত ওমর কত জঘন্য মানুষ ছিল যে সে নাংগা তরবারী হাতে রাসুল সঃ কে কতল করতে আসছিল।

তখন সে ভুল এবং ক্ষতির মধ্যে ছিল। তাঁর তখনকার সেই গুরুতর অপরাধের কারনে যদি তাকে হত্যা করা হোত তাহলে পৃথিবী কোনদিনই হজরত ওমর রাঃ এর মত ওতবড় ইসলামের খাদেম এবং মহান নেতাকে দেখতে পেত না।

nice-pic1

এটা প্রমান করে যে আজকে যে নাস্তিক আছে, আজকে যে মুরতাদ আছে, আজকে যে মুশরিক আছে ভবিষ্যতে সে একজন খাটি মুসলমান হয়ে যেতেও পারে। ভবিষ্যতে সে কি হবে তা কি আল্লাহ ছাড়া আর কেও বলতে পারে? অবশ্যই না। কাজেই ধর্ম নিয়ে শত্রুতা সৃস্টি করে যারা মানুষ হত্যা করে (যেমন তালেবান, আল-কায়েদা, জেএমবি, বোকোহারাম, আইএস ইত্যাদি) তারা মারাত্বক ভুল করছে।

তবে ওরাও আমাদের শত্রু  না কারন ওরা বর্তমানে জাস্ট ভুল এবং ক্ষতির মধ্যে আছে। ওদের ভুল, বোকামী এবং ক্ষতির জন্য আমাদের খুব দুঃখ হয়। আমাদের রাসুল সঃ ছিলেন ক্ষমা এবং ভালবাসার মুর্ত প্রতিক। আমরা তাঁর অনুসারি, আমাদেরকেও তাঁর মত হতে হবে; রক্তপিপাসু হলে চলবে না।

[10 সূরা ইউনুস 99] আর তোমার পরওয়ারদেগার যদি চাইতেন, তবে পৃথিবীর বুকে যত মানুষ রয়েছে, তাদের সবাই ঈমান নিয়ে আসত সমবেতভাবে। তুমি কি মানুষের উপর জবরদস্তী করবে ঈমান আনার জন্য? 

[6 সূরা আল্ আন-আম 107] যদি আল্লাহ চাইতেন তবে তারা (মুশরিকরা) শেরক করত না। আমি তোমাকে তাদের সংরক্ষক করিনি এবং তুমি তাদের কার্যনির্বাহী নও। 

মহান আল্লাহ সবাইকে চাইলে হেদায়েত দিতে পারতেন; সবাইকে এক মুসলমান জাতি বানিয়ে দিতে পারতেন। কিন্তু মহান আল্লাহর মোটেও তা ইচ্ছা না।

 [49 সূরা আল-হুজরাত 13] হে মানব, আমি তোমাদেরকে এক পুরুষ ও এক নারী থেকে সৃষ্টি করেছি এবং তোমাদেরকে বিভিন্ন জাতি ও গোত্রে বিভক্ত করেছি, যাতে তোমরা পরস্পরে পরিচিতি হও।...

সুতরাং, কে মুসলমান আর কে কাফের, কে বাংলাদেশী, আর কে চাইনিজ, না আমেরিকান, না ইন্ডিয়ান তা বড় কথা নয়, আমরা সবাই ভাই-ভাই বা ভাই-বোন কারন আমরা সবাই এক দম্পতি আদম-হাওয়ার সন্তান (বনি আদম)।

কাজেই ধর্মের ভিত্তিতে মানুষের মধ্যে মারামারি, হানাহানী, শত্রুতা সৃস্টি করা হল মহান আল্লাহ এবং তাঁর রাসুলের ইচ্ছার বিরুদ্ধে যাওয়া। মহান আল্লাহ আমাদের ভুল পথ থেকে বাঁচার এবং প্রকৃত সত্য বোঝার এবং ধৈর্য ধরার তৌফিক দিন, আমিন।

বি.দ্রঃ এই ওয়েবসাইটে যে সব আর্টিকেল আছে তা বিভিন্ন সময়ে পাঠানো বিভিন্ন লেখকদের নিজস্ব মতামত প্রতিফলিত হয়েছে। ওসব মতামতের জন্য www.QuranResearchBD.org কতৃপক্ষ কোনভাবেই দায়ী নয়।  22-07-16. Copyright © www.QuranResearchBD.org


One Brilliant Comment - Join Discussion Now!

  1. Rubel says:

    অসাধারন লেখা। এমন সুন্দর, ভাল এবং জ্ঞানগর্ভ লেখা আমি জীবনে পড়িনি। লেখককে অনেক অনেক ধন্যবাদ।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

*