শান্তির ধর্ম প্রকৃত ইসলামের উপর একটি অন্যন্য সাধারন ওয়েবসাইট


রমজানের রোজা কি স্বাস্থ্যের উন্নতি ঘটায়?


অনেকে বলে থাকেন, রমজানের রোজা  রাখা স্বাস্থ্যর উন্নতি ঘটায় যেমন একজন ডাক্তার লিখেছেন, রোজা থাকলে ‘ভালো কোলেস্টেরল’ বৃদ্ধি পায়। আমি তো অন্যত্র একটা বৈজ্ঞানিক জার্নালে দেখলাম, রোজা থাকলে খারাপ কোলেস্টেরল বৃদ্ধি পায়! তবে এটা নিশ্চিত বলা যায়, রোজা স্বাস্থ্যর কোন উন্নতি ঘটায় না বরং স্বাস্থ্যের ক্ষতি করার সমুহ সম্ভবনা রয়েছে।

এ ব্যাপারে আমার কাছে যথেস্ট শক্ত তথ্য-প্রমান আছে। যেমন, পাশাপাশি দুটি দেশ মালোয়েশিয়া এবং সিঙ্গাপুর – একটি মুসলিম প্রধান এবং অপরটি  অমুসলিম প্রধান। দেখা যাচ্ছে, সিঙ্গাপুরের মানুষের গড় আয়ু ৮২.৬৪ বছর (বিশ্বের মধ্যে ৫ তম) আর মালোয়েশিয়ায় তা ৭৪.৫০ বছর (বিশ্বের মধ্যে ৮৫ তম)। আবার দেখুন ডায়াবেটিসের আধিক্যও অধিকাংশ ক্ষেত্রেই মুসলিম দেশগুলোতে বেশি। মালোয়েশিয়াতে ডায়াবেটিসের আধিক্য অনেক বেশি এবং বিশ্বে তা ১০ম স্থানে অথচ সিঙ্গাপুরে তা অনেক কম, ৪৩ম স্থানে

মালোয়েশিয়া এবং সিঙ্গাপুরের এই স্বাস্থ্য বিষয়ক তথ্য এই কারনে বিশেষভাবে উল্লেখ করলাম কারন উভয় দেশের আবহাওয়াও একই রকমের ফলে তুলনা করাটা অধিকতর যুক্তিসংগত। তাহলে উপরের এই সংক্ষিপ্ত আলোচনা থেকে স্পটতই বলা যায়, রমজানের রোজা স্বাস্থ্যের কোন উন্নতি ঘটায় না বরং তার উল্টোটি ঘটার সমুহ সম্ভবনা রয়েছে।

আজ থেকে প্রায় ১৫০০ বছর আগে যখন কুরআন নাজিল হয়, সেই আরবের মরুভুমিতে খাবারের অত্যন্ত অভাব ছিল, মানুষগুলো ছিল খুবই উগ্র, বদমেজাজী এবং খারাপ। ঐসব বর্বব মানুষদের নিয়ন্ত্রনের জন্য সেই প্রায় দুর্ভিক্ষপিড়িত পরিবেশে রোজার দরকার ছিল কারন রোজার মুল থিম হল পরহেজগার মানুষ হওয়া।

একজন পরহেজগার মানুষ ঘূষ খাবে না, সৎ হওয়ার ভান না করে প্রকৃত সৎ হবে, মানুষের কোন কস্ট দেবে না, গালিগালাজ করবে না, বিনয়ী, নিরহংকারী, ক্ষমাশীল, দানশীল, পরপোকারী, মিস্টভাষী হবে ইত্যাদি। তাই সেই আইয়ামে জাহেলিয়াতের যুগে রোজার খুবই দরকার ছিল। আমরা অভুক্ত থাকলে মহান আল্লাহর কোন লাভ বা ক্ষতি কিছুই হয় না। ধন্যবাদ।


মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

*