শান্তির ধর্ম প্রকৃত ইসলামের উপর একটি অন্যন্য সাধারন ওয়েবসাইট

পরম করুনাময় ও অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে – কুরআনের অতি জরুরী বিশেষ কিছু আয়াত


আপনার প্রতি শান্তি বর্ষিত হোক (সালামুন আলাইকুম)। আমাদের ওয়েবসাইটে আপনাকে স্বাগতম। আমরা শীয়াও না, কাদিয়ানীও না, সুন্নীও না… আমরা মুসলমান। অবশ্য কারো নিন্দা-মন্দ করা আমাদের কাজ না। আমরা শুধু সাধ্যমত, সর্বচ্চ সততার সাথে সত্য প্রকাশ এবং প্রচারের চেস্টা করে যাব ইনশাল্লাহ।

কোন মানুষই ভুলের উর্ধে নয় (সে যত বড় ডিগ্রীধারী বা মহাপন্ডিতই হোক না কেন!), কাজেই আমাদের যদি কোন ভুলত্রুটি আপনার নজরে আসে আমাদের তা জানলে আমরা কৃতজ্ঞ থাকব। আমাদের বিজ্ঞ লেখক, পাঠক ও কুরআন গবেষকদের বই এবং গুরুত্বপূর্ন আর্টিকেল পড়ুন, সঠিক ইসলাম জানুন ও পালন করুন এবং সঠিক ইসলাম প্রচার করে দুনিয়া ও আখেরাতের অশেষ কল্যান হাসিল করুন।

[3 সূরা আল্ ইমরান 104] আর তোমাদের মধ্যে এমন একটা দল থাকা উচিত যারা আহবান জানাবে সৎকর্মের প্রতি, আহবান জানাবে ভাল কাজের এবং বারণ করবে অন্যায় কাজ থেকে, আর তারাই হলো সফলকাম।

[110] তোমরাই হলে সর্বোত্তম উম্মত, মানবজাতির কল্যানের জন্যেই তোমাদের উদ্ভব ঘটানো হয়েছে। তোমরা সৎকাজের আহবান জানাবে ও অন্যায় কাজে বাধা দেবে এবং আল্লাহর প্রতি ঈমান আনবে। 

[2 সূরা আল্ বাকারাহ্ 256] দ্বীনের ব্যাপারে কোন জবরদস্তি বা বাধ্য-বাধকতা নেই।

[62] নিঃসন্দেহে যারা মুসলমান হয়েছে এবং যারা ইহুদী, নাসারা ও সাবেঈন, (যে কোন ব্যক্তি) যারা ঈমান এনেছে আল্লাহর প্রতি ও শেষ দিবসের প্রতি এবং সৎকাজ করেছে, তাদের জন্য রয়েছে তার সওয়াব তাদের পালনকর্তার কাছে। আর তাদের কোনই ভয়-ভীতি নেই, তারা দুঃখিতও হবে না। 

[10 সূরা ইউনুস 99] আর তোমার পরওয়ারদেগার যদি চাইতেন, তবে পৃথিবীর বুকে যত মানুষ রয়েছে, তাদের সবাই ঈমান নিয়ে আসত সমবেতভাবে। তুমি কি মানুষের উপর জবরদস্তী করবে ঈমান আনার জন্য? 

[109 সূরা কাফিরুন 6] তোমাদের ধর্ম তোমাদের জন্যে এবং আমার ধর্ম আমার জন্যে। 

[3 সূরা আল্ ইমরান 190] নিশ্চয় আসমান ও যমীন সৃষ্টিতে এবং রাত্রি ও দিনের আবর্তনে নিদর্শন রয়েছে বোধ সম্পন্ন লোকদের জন্যে। 

[5 সূরা মায়েদাহ 8] হে বিশ্বাসীগন, তোমরা আল্লাহর উদ্দেশে ন্যায় সাক্ষ্যদানের ব্যাপারে অবিচল থাকবে এবং কোন সম্প্রদায়ের শত্রুতার কারণে কখনও ন্যায়বিচার পরিত্যাগ করো না। সুবিচার কর, এটাই প্রকৃত সৎকর্ম। আল্লাহকে সম্মান কর। তোমরা যা কর, নিশ্চয় আল্লাহ সে বিষয়ে খুব জ্ঞাত। 

[3 সূরা ইমরান 134] সৎকর্মশীলরা ভাল এবং খারাপ উভয় সময়েয় দান-খয়রাত করে, যারা নিজেদের রাগকে সংবরণ করে আর মানুষের প্রতি ক্ষমা প্রদর্শন করে, বস্তুতঃ আল্লাহ সৎকর্মশীলদিগকেই ভালবাসেন। 

[6 সূরা আল্ আন-আম 54] আর যখন তারা তোমার কাছে আসবে যারা আমার নিদর্শনসমূহে বিশ্বাস করে, তখন তুমি তাদের বলঃ তোমাদের উপর শান্তি বর্ষিত হোক। তোমাদের পালনকর্তা রহমত করা নিজের প্রতি অত্যাবশ্যক করে নিয়েছেন যে, তোমাদের মধ্যে যে কেউ অজ্ঞতাবশতঃ কোন মন্দ কাজ করে, অনন্তর এরপরে তওবা করে নেয় এবং সৎ হয়ে যায়, তবে তিনি অত্যন্ত ক্ষমাশীল, করুণাময়। 

[107] যদি আল্লাহ চাইতেন তবে তারা (মুশরিকরা) শেরক করত না। আমি তোমাকে তাদের সংরক্ষক করিনি এবং তুমি তাদের কার্যনির্বাহী নও। 

[7 সূরা আল আরাফ 199] আর ক্ষমা করার অভ্যাস গড়ে তোল, সহনসীলতার প্রসার ঘটাও এবং মূর্খ অবুঝদের থেকে দূরে সরে থাক।

[39 সূরা আল-যুমার 53] হে আমার বান্দাগণ যারা নিজেদের উপর যুলুম করেছ তোমরা আল্লাহর রহমত থেকে নিরাশ হয়ো না। নিশ্চয় আল্লাহ সমস্ত গোনাহ (কবিরা, সগীরা সহ সব গোনাহ) মাফ করেন। তিনি ক্ষমাশীল, পরম দয়ালু।

 

এই ওয়েবসাইটের যে কোন বই বা আর্টিকেল আপনি যে কোন ভাবে প্রচার করতে পারেন এবং আমরা তা উৎসাহিত করি তবে অবশ্যই সূত্র www.QuranResearchBD.org উল্লেখ করতে হবে। অনলাইনে হলে সূত্রের লিংক ক্লিকেবল হতে হবে। আর আপনি কোন বই বা আর্টিকেলের সংশোধন (Editing) বা পরিমার্জন করতে পারবেন না। এই সব শর্ত পূরন না হলে কপিরাইট ভায়লেশন বলে গন্য করা হবে। ধন্যবাদ। This site is © Copyright www.QuranResearchBD.org 2013; All Rights Reserved.